হাইপেশিয়া: প্রোক্রাস্টিজের বিছানায় প্রজ্বলিত পুরাণ

হাইপেশিয়া

যখন প্রাচীন দর্শনের সেই জগতটির কথা কল্পনা করতে বলা হয়, অধিকাংশই টোগা পরিহিত দাড়িসহ একগুচ্ছ বৃদ্ধের কথা ভাবেন। কিন্তু উন্মুক্ত চত্বরে একজন নারী বক্তৃতা দিচ্ছেন, এবং তার সেই বক্তৃতা শোনার আকর্ষণে সেখানে বহু দূর থেকে আসা শ্রোতা-দর্শকদের একটি বড় জমায়েত সৃষ্টি হয়েছে – এমন দৃশ্য অধিকাংশেরই ধারণার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। আর এটি হচ্ছে আরো বহু কারণের একটি – আলেক্সান্ড্রিয়ার হাইপেশিয়া কেন এত আকর্ষণীয় এক চরিত্র।

হাইপেশিয়া ছিলেন একজন গণিতজ্ঞ, জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবং দার্শনিক। তিনি ছিলেন প্রথম দার্শনিকদের একজন, যিনি ছিলেন একজন নারী এবং যার জীবনের মূল ঘটনাগুলো সম্বন্ধে আমাদের কাছে নির্ভরযোগ্য ঐতিহাসিক বিবরণ আছে। এই সত্য সত্ত্বেও, বহু পুরাণ তাকে পরিবেষ্টিত করে আছে। তার মৃত্যু পরবর্তী শতাব্দীগুলোয় তিনি কবিতা, সাহিত্য, শিল্পকলা, এবং এমনকি ‘আগোরা’ নামে একটি ব্যয়বহুল চলচ্চিত্রে ( ইংরেজি ভাষায় যে চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছিল স্পেনে) কেন্দ্রীয় চরিত্রে রূপান্তরিত হয়েছিলেন, প্রখ্যাত অভিনেত্রী র‍্যাচেল ভাইজ যেখানে হাইপেশিয়ার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। এইসব কাহিনীগুলো, যদিও উপভোগ্য, কিন্তু হাইপেশিয়ার জীবন এবং কাজ সম্বন্ধে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় সংশয় সৃষ্টি করেছে। আর সেকারণেই কিংবদন্তীর এইসব আস্তরণগুলো সরিয়ে ফেলা গুরুত্বপূর্ণ, যেন হাইপেশিয়া আসলেই যেমন মানুষ ছিলেন, সেটি আমরা প্রকৃতভাবে মূল্যায়ন করতে পারি।

র‍াফায়েল, স্কুল অব এথেন্সের ডিটেইল, হাইপেশিয়া (ফ্রানচেসকো মারিয়া ডেলা রোভেরে ছিলেন এর মডেল) 

মিসরের আলেক্সান্ড্রিয়ায় আনুমানিক ৩৫০ খ্রিস্টাব্দে (যদিও সঠিক তারিখটি আমাদের অজানা) হাইপেশিয়া জন্মগ্রহন  করেছিলেন। আলেক্সান্ড্রিয়া তখন রোম সাম্রাজ্যের একটি অংশ ছিল। প্রসঙ্গক্রমে, এটি ছিল আলেক্সান্ড্রিয়ার আরেকজন বিখ্যাত নারী, সপ্তম ক্লিওপেট্রার জন্মের প্রায় ৪০০ বছর পরের ঘটনা। আলেক্সান্ড্রিয়া শহরটি জ্ঞানচর্চার একটি কেন্দ্র হিসাবে সুপরিচিত ছিল, এটি প্রায় এথেন্সের সমকক্ষ ছিল। শহরের বিখ্যাত শিক্ষক-পণ্ডিতদের নিকট থেকে শিক্ষা গ্রহন করতে বহু দূর দূরান্ত থেকে শিক্ষার্থীরা এই শহরে আসতেন। ধারণা করা হয়, হাইপেশিয়ার বাবা থিওন, আলেক্সান্ড্রিয়ার মর্যাদাপূর্ণ একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ছিল – যে বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম ছিল ‘মোউসেইওন’। থিওন একজন বিখ্যাত গণিতজ্ঞ এবং শিক্ষক ছিলেন, যিনি তার জীবদ্দশায় বহু গণিতের বই সম্পাদনা করেছিলেন তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল ইউক্লিডের ‘এলিমেন্টস’ বইটির একটি আদি সংস্করণ সম্পাদনা। এই বইটি গণিতে আদি পর্বের বহু মৌলিক সূত্র আর মূলনীতিগুলোর বিবরণ দিয়েছিলেন। এবং থিওনের এই বইটি সংক্রান্ত আলোচনা ও সংযোজন এখনো ব্যবহৃত হচ্ছে। দুঃখজনকভাবে, হাইপেশিয়ার মা সম্বন্ধে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই এবং লিপিবদ্ধ ইতিহাস তার সম্বন্ধে কোনো তথ্য নেই।

Continue reading “হাইপেশিয়া: প্রোক্রাস্টিজের বিছানায় প্রজ্বলিত পুরাণ”
হাইপেশিয়া: প্রোক্রাস্টিজের বিছানায় প্রজ্বলিত পুরাণ