রিচার্ড ডকিন্স এর দি গ্রেটেষ্ট শো অন আর্থ : ষষ্ঠ অধ্যায় (শেষ পর্ব)

artist-impression-of-odontochelys-semitestacea

turtle-shell-evolution-1 turtle-shell-evolution-2ছবি: Odontochelys semistestacea  চীনে আবিষ্কৃত এই জীবাশ্মটি আপাতত খুজে পাওয়া সবচেয়ে প্রাচীনতম কচ্ছপের জীবাশ্ম। প্রায় ২২০ মিলিয়ন বছর প্রাচীন জীবাশ্মটি কিভাবে তাদের খোলশ বিবর্তন করেছিলে সেই রহস্যটি উন্মোচনে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করেছে। এর আবিষ্কারের পর পরই বিতর্কটি সুচনা হয়, কিভাবে এদের খোলস বিবর্তিত হয়েছে। জীবাশ্মটির  আবিষ্কার মেরুদন্ড আর পাজরের এর সম্প্রসারণ হিসাবে খোলসের বিবর্তনের স্বপক্ষে বেশ শক্তিশালী প্রমানের যোগান দেয়। জীবাশ্মটির শরীরের নীচের দিকে আংশিক খোলস এবং উপরের খোলস এর অনুপস্থিতি চের খোলসটি যে আগে বিবর্তিত হয়ে সেই বিষয়টি প্রমানিত করেছে। িএছাড়া এটি বিবর্তিত হয়েছে সমুদ্রে বিশেষ করে নীচের দিক থেকে শিকারী প্রাণীর আক্রমন বিরোধী একটি বর্ম হিসাবে। কিন্তু তারা আবার যখন স্থলবাসী হয় তখন তাদের উপরের খোলসটি বিবর্তিত হয়, যা তাদের প্রতিরক্ষা বর্ম হিসাবে বিশেষ গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা রাখতে শুরু করে।

Manchurochelysliaoxiensis Placodonts

রিচার্ড ডকিন্স এর দি গ্রেটেষ্ট শো অন আর্থ :  ষষ্ঠ অধ্যায়  (শেষ পর্ব)
( অনুবাদ প্রচেষ্টা: কাজী মাহবুব হাসান)

The Greatest Show on Earth: The evidence for evolution by Richard Dawkins

 প্রথম অধ্যায়
দ্বিতীয় অধ্যায়
তৃতীয় অধ্যায় ( প্রথম পর্ব)  তৃতীয় অধ্যায় ( দ্বিতীয় পর্ব)তৃতীয় অধ্যায় ( শেষ পর্ব)
চতুর্থ অধ্যায় (প্রথম পর্ব) | চতুর্থ অধ্যায় (দ্বিতীয় পর্ব)
চতুর্থ অধ্যায় (তৃতীয় পর্ব) | চতুর্থ অধ্যায় ( শেষ পর্ব)
পঞ্চম অধ্যায়: প্রথম পর্ব | পঞ্চম অধ্যায়: দ্বিতীয় পর্ব |
পঞ্চম অধ্যায়: তৃতীয় পর্ব | পঞ্চম অধ্যায়: শেষ পর্ব |
ষষ্ঠ  অধ্যায়: প্রথম পর্বদ্বিতীয় পর্ব | তৃতীয় পর্ব | চতুর্থ পর্ব

 মিসিং লিঙ্ক ? ঠিক কি বোঝাতে চাইছেন আপনি ’মিসিং’ শব্দটি দিয়ে?

সমুদ্র থেকে আবার শুকনো মাটিতে ….

এবার আমি আরো একটি গ্রুপের প্রানীদের কথা আলোচনা করবো, যারা সমুদ্র থেকে আবার ফিরে গেছে শুকনো মাটিতে স্থলবাসী হবার জন্য আর এরা বিশেষভাবে একটি কৌতুহল্লোদ্দীপক উদহারণ কারন এদের কেউ কেউ আবার প্রক্রিয়ার প্রতিবর্তন করে পুনরায় পানি ছেড়ে ডাঙ্গায় ফিরে এসেছে দ্বিতীয়বারের মত; সী টার্টল (Sea turtle-সামুদ্রিক কচ্ছপ), একটি গুরুত্বপুর্ণ ক্ষেত্রে পুরোপুরি পানিতে ফিরে যায়নি তিমি বা ডুগংদের মত, কারন তারা এখনও সমুদ্রের  বেলা ভুমিতে ডিম পাড়ে। এবং সমুদ্রে প্রত্যাবর্তন করা সব মেরুদন্ডী প্রানীদের মত, টার্টলরা বাতাসে শ্বাস নেবার প্রক্রিয়াটা ত্যাগ করেনি। এবং এই বিশেষ ক্ষেত্রে এদের কেউ কেউ বেশ খানিকটা সামনে এগিয়ে গেছে তিমিদের চেয়ে। এই কচ্ছপগুলো পানি থেকে বাড়তি অক্সিজেন সংগ্রহ করতে পারে, তাদের শরীরের পেছনের এক জোড়া প্রকোষ্ঠ ব্যবহারের মাধ্যমে, যেখানে রক্ত চলাচল বেশ সমৃদ্ধ। একটি অষ্ট্রেলিয় রিভার টার্টল (যেভাবে কোন অষ্ট্রেলীয় কখনোই ইতস্তত বোধ করবেন না) আসলে তাদের সিংহভাগ অক্সিজেন পায় পায়ুপথের মাধ্যমে।

আরও গভীরে যাবার আগে,  আমি আবারো এড়াতে পারবো না সেই নামকরণের ক্লান্তিকর প্রক্রিয়ায় বিশেষ বিষয়টি, জর্জ বার্ণাড শ র একটি দু:খজনক পর্যবেক্ষনের সত্যতার প্রমান মেলে যেখানে: ইংল্যান্ড এবং আমেরিকা দুটি দেশ যাদের বিভাজিত করেছে একটি সাধারণ ভাষা। ব্রিটেনে টার্টল বাস করে সাগরে, টরটয়েস (Tortoise) বাস করে স্থলে এবং টেরাপিনস (Terrapin) বাস করে মিঠাপানি কিংবা নোনা পানিতে। আর আমেরিকায় এই সব প্রানী হচ্ছে টার্টল, তারা পানি কিংবা ডাঙ্গায় যেখানেই বাস করুক না কেন। ল্যান্ড টার্টল শুনলে আমার কাছে অদ্ভুত মনে হয়, কিন্তু কোন অ্যামেরিকান এর কাছে তা মনে হয়না। যাদের জন্য টরটয়েস হচ্ছে টার্টলদের সাবসেট, যারা ডাঙ্গায় বাস করে। কিছু আমেরিকাবাসীরা টরটয়েস শব্দটি ব্যবহার করে কঠোর ট্যাক্সোনোমিক অর্থে Testudinidae এর বর্ণনা করার জন্য, এটি সকল স্থলবাসী টরটয়েস দের বৈজ্ঞানিক নাম। ব্রিটেনে আমরা স্থলবাসী যেকোন chelonian কে টরটয়েস বলতে পছন্দ করি, তারা Testudinidae গণ র অন্তর্ভুক্তে হোক বা না হোক ( যেমনটি আমরা দেখবো, জীবাশ্ম টরটয়েসও আছে যারা স্থলে বাস করতো কিন্তু Testudinida পরিবারের সদস্য নয়);পরবর্তী আলোচনা যেটা হবে আমি সেখানে কোন ধরনের সংশয় এড়াতে চাচ্ছি, এবং ব্রিটেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের ( এবং অষ্ট্রেলিয়া, সেখানে আবার এই শব্দগুলোর ব্যবহার ভিন্ন) জন্য বিশেষ ছাড় দিয়ে। কিন্তু আসলেই কাজটি কঠিন। এই নামকরণ ব্যপারটি খুবই এলোমেলো, যদি হালকা ভাবে বলি।প্রাণীবিজ্ঞানীরা ব্যাবহার করেন chelonians শব্দটি, এই সব প্রানীদের বোঝানোর জণ্য, টার্টল, টরটয়েস এবং টেরাপিন, যে সংস্করণের  ইংলিশই আমরা ব্যবহার করি না কেন।

খুব তাৎক্ষনিকভাবে chelonian দের  সবচেয়ে লক্ষনীয় বৈশিষ্ট হচ্ছে তাদের শেল বা খোলস। কিভাবে এটি বিবর্তিত হয়েছিল, এবং এর অন্তর্বর্তীরুপগুলোই বা কেমন? মিসিং লিঙ্ক গুলোই বা কোথায়? ( কোন অতিউৎসাহী সৃষ্টিবাদী হয়তো জিজ্ঞাসা করতে পারেন) এই অর্ধেকটা শেল এর কি মুল্য আছে?, বেশ বিস্ময়করভাবে, একটি নতুন জীবাশ্ম অতিসম্প্রতি বিজ্ঞানীরা ব্যাখ্যা করেছেন বিস্তারিতভাবে, যা স্বাচ্ছন্দের সাথেই এই সব প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম। এটি প্রথম প্রকাশ করেছে Nature জার্নাল, প্রকাশকের হাতে বইটা দেবার আগেই সঠিক সময়ে এটি আমার নজরে আসে। জীবশ্মটি একটি জলজ কচ্ছপ এর, চীন এর ট্রায়াসিক পলিস্তরে পাওয়া এই জীবাশ্মটির ২২০ মিলিয়ন বছর প্রাচীন, এর নামকরণ হয়েছে, Odontochelys semitestacea, এর থেকে আপনি হয়তো বুঝতে পারবেন আধুনিক টার্টল বা টরটয়েজ এর ব্যতিক্রম, এর দাত দিল, এবং আসলেই অর্ধেকটা খোলশও ছিল। এছাড়া আধুনিক টার্টল বা টরটয়েস এর চেয়ে এর অনেক বড় লম্বা লেজ ছিল। এই তিনটি বৈশিষ্ট এটিকে বিশেষভাবে চিহ্নিত করেছে সম্ভাব্য মিসিং লিঙ্ক প্রাণী হিসাবে। এর পেট ঢাকা একটি খোলশ দিয়ে, যাকে বলা হয় Plastron, আধুনিক সামুদ্রিক টার্টল এর যেমন থাকে। ‍কিন্তু এর উপরের পিঠের দিকে বা ডরসাল খোলস ছিল না, যাকে বলা কারাপেস (Carapace);  ধারনা করা হয় এর পিঠটা নরম, অনেকটা গিরগিটির মত, যদি মেরুদন্ডের উপর মাঝ বরাবর শক্ত হাড়ের টুকরো ছিল, কুমির এর মত। এবং তার বুকের পাজর চ্যাপ্টা, যেমন একটি কারপেস সৃষ্টি করার বিবর্তনীয় প্রচেষ্টার একটি ’রুপ’।

এবং মজার একটি বিতর্ক আমরা দেখি, এই প্রবন্ধটির লেখকরা, যারা Odontochelys কে পৃথিবীর সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন, লি, উ, রিপেল এবং ঝাও ( সংক্ষিপ্ততার খাতিরে আমি তাদের চীনা গবেষক হিসাবে উল্লেখ করবো, যদিও রিপেল চীনা নন), তাদের ধারনা ছিল, তাদের আবিষ্কৃত প্রাণীটি পুরো খোলস বা কারাপেস পাবার মাঝামাঝি একটি অবস্থা। অন্যদের আপত্তি এই দাবী নিয়ে যে Odontochelys যেটা প্রমান করতে পারেনি সেটা হচ্ছে খোলসটা পানিতে বিবর্তিত হয়েছে কিনা ? Nature এর বেশ প্রশংসনীয় একটি প্রথা আছে কোন সপ্তাহের গুরুত্বপুর্ণ প্রবন্ধের বিষয়ে মুল লেখকদের বাইরে কিন্তু সেই বিষয়ে কোন বিশেষজ্ঞকে একটি মতামত লেখার সুযোগ দেয়া, যে লেখাটি তারা প্রকাশ করে News অ্যান্ড Views শীর্ষক একটি সেকশনে।

Odontochelys নিয়ে  Nature এর News and Views সেকশনে প্রবন্ধটি লেখেন দুজন কানাডীয় জীববিজ্ঞানী,রবার্ট রাইস এবং জেসন হেড এবং তারা সেখানে একটি বিকল্প ব্যাখ্যা দেন। হতে পারে পুরো খোলশটি বিবর্তিত হয়েছিল স্থলে, Odontochelys দের পুর্বসুরী প্রানীদের পানিতে ফিরে যাবার আগে। এবং হতে পারে Odontochelys রা তাদের সেই কারাপেসটি হারিয়েছে পানিতে ফিরে যাবার পর।রবার্ট রাইস এবং জেসন হেড উল্লেখ করেন যে,বর্তমানে জীবিত কিছু সী টার্টল প্রজাতি, যেমন giant leatherback turtle, তার কারাপেস সম্পুর্ণ বা অনেকাংশে হারিয়ে ফেলেছে, সুতরাং তাদের তত্ত্বটির সত্য হওয়া সম্ভবপর হতে পারে।

অর্ধেকটা শেল বা খোলস কি কাজে লাগতে পারে? এই প্রশ্নটি বিষয়ে আমি খানিকটা সংক্ষিপ্ত ভিন্ন আলোচনা করার প্রয়োজন বোধ করছি। বিশেষ করে কেন Odontochelys দের শরীরের নীচে প্রতিরক্ষা বর্ম দরকার কিন্তু উপরে না? হয়তো এর কারন তল থেকে বিপদের সম্ভাবনা আছে, যা ইঙ্গিত দিচ্ছে এই সব প্রাণীরা পানির উপরে পৃষ্টের দিকে সাতার কাটতে বহু সময় ব্যয় করে, এছাড়া অবশ্যই তাদের পানির উপরে নাক তুলতে হয় শ্বাস নেবার জন্য। আজকের যুগে হাঙ্গররা নীচে থেকে প্রায়ই আক্রমন করে, হাঙ্গররা Odontochelys দের পৃথিবী একটি ভয়ঙ্কর বাস্তবতা হতে পারে, এবং কোন কারন নেই সেই সময়ে তাদের শিকার করার অভ্যাস ভিন্ন ছিল বর্তমানের চেয়ে।

LuzOlhoEspecialPeixe Bathylychnops exilisMEU

tumblr_m5ungiY2gG1rprj1yo2_500ছবি: Bathylychnops’ extra eye (Bathylychnops exilis) this species of deep sea fish possesses a large pair of principal eyes and a second, smaller pair (known as secondary globes) positioned within the lower half of its principle eyes, each possessing its own lens and retina. The secondary globes are thought to facilitate with light detection in the pitch black world. A third set of ‘eyes’ (having no retina) are located behind the secondary globes and serve to direct light into the fish’s primary eyes. (Image 1: Hans-Joachim Wagner ; Image 2 Tammy Frank, Habor Branch Oceanographic Institution)

একটি সমান্তরাল উদহারণ, বিবর্তনের একটি অন্যতম বিস্ময়কর অর্জন হচ্ছে Bathylychnops মাছদের অতিরিক্ত একজোড়া চোখ, এটি সম্ভাব্য উদ্দেশ্য তলথেকে কোন শিকারী প্রানীর আক্রমনের বিরুদ্ধে সতর্কতা অবলম্বন। মুল চোখটি বাইরের দিকে লক্ষ্য করা, যে কোন সাধারণ মাছের মত, কিন্তু দুটি মুল চোখের সাথেই একটা করে বাড়তি চোখ আছে, লেন্স ও রেটিনা সহ পুর্ণাঙ্গ চোখ, যা নিচের দিকে ফেরানো থাকে। যদি Bathylychnops রা যদি সেই ঝামেলা ঘাড়ে নিতে পারে ( আপনারা জানেন আমি কি বলছি, দয়া করে বিষয়টি আচার সর্বস্বতার বাইরে ভাববেন) পুরো এক জোড়া পুর্ণাঙ্গ চোখ বিবর্তন করার জন্য, সম্ভবত নীচ থেকে কোন শিকারী প্রানীর আক্রমন প্রতিহত করার জন্য, খুব সঙ্গত কারনেই সম্ভাবনা আছে Odontochelys রা সেই একই আক্রমন ঠেকাতে সেই দিকে তাদের প্রতিরক্ষা বর্ম হিসাবে খোলসের বিবর্তন ঘটানো সম্ভব। সুতরাং নীচের খোলস বা প্লাসট্রোন সহজেই ব্যাখ্যা যোগ্য। এবং যদি আপনি বলতে চান, হ্যা, কিন্তু উপরেও একটা খোলস বা ক্যারাপেস থাকলে অসুবিধা কি, একই বাড়তি সুরক্ষা হিসাবে। এর উত্তরটা সহজ। খোলসরা ভারী এবং এটি নিয়ে যাতায়াত করা কঠিন, এদের তৈরী করা কষ্ট, বাড়তি শক্তি ব্যবহার করার দরকার, একই সাথে বেশ শক্তি প্রয়োজন এটি বয়ে বেড়ানোর জন্য। বিবর্তন প্রক্রিয়ায় সবসময়ই কিছু ট্রেড অফ বা কোন কিছুর পাওয়ার বিনিময়ে কিছু হারাতে হয়। স্থল বাসী টরটয়েসদের জন্য, এই হিসাব নিকাশ এর ফলাফলে তৈরী হয় মজবুত, ভারী বর্ম, উপরে ও নীচে। অনেক সামুদ্রিক টার্টল এর ক্ষেত্রে  সেই একই হিসাব নিকাশ সুযোগ করে দেয় নীচের মজবুত বর্ম বা প্লাসট্রোণ এবং উপরে হালকা বর্ম। সম্ভাবনা আছে যে Odontochelys রা  এই প্রবণতাকে আরো খানিকটা সম্প্রসারিত করেছিলেন।

যদি, আবার অন্যদিকে, চীনা গবেষকরাও ঠিক যে Odontochelys রা পুরো খোলশ বিবর্তনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল এবং এই খোলসটি বিবর্তিত হয়েছে পানিতে, এর অর্থ হতে পারে আধুনিক স্থলবাসী টরটয়েসদের যাদের সুগঠিত শেল ছিল তারা বিবর্তিত হয়েছে সী টার্টলদের কাছ থেকে।

আর এটি আমরা পরবর্তীতে দেখবো সম্ভবত সত্যি, কিন্তু এটি উল্লেখযোগ্য, কারন এর অর্থ হচ্ছে যে আজকের স্থলবাসী টরটয়েস পানি থেকে,  স্থলে দ্বিতীয় মাইগ্রেশন এর প্রতিনিধিত্ব করছে। কেউ কখনো দাবী করেনি তিমি, বা ডুগং সমুদ্র বসবাস শুরু করার পর আবার স্থলে ফিরে  এসেছে। ল্যান্ড টরটয়েস এর এই বিকল্প গল্প হচ্ছে যে তারা সব সময়ই স্থলবাসী ছিল, এবং স্বতন্ত্রভাবে তারা খোলস বিবর্তন করেছিল, তাদের জলজ নিকটাত্মীয়দের সমান্তরালে। এটি একেবারে অসম্ভব কোন ঘটনা না। কিন্তু আমরা যা জানি, আমাদের খুব ভালো কারণ আছে বিশ্বাস করার জন্য যে সী টার্টলরা আসলেই পানি থেকে ফিরে এসেছিল দ্বিতীয় প্রত্যাবর্তনে এবং রুপান্তরিত হয়েছে স্থলবাসী টরটয়েস এ।

Turtlepalaeoenvironmentalchange

ছবি: Family tree of tortoises and turtles

আপনি যদি সব আধুনিক টার্টল ও টরটয়েস এর পারিবারিক বৃক্ষের একটি চিত্র আকতে পারেন, জীনগত এবং অন্যান্য তুলনামুলক আলোচনায়, প্রায় প্রতিটি শাখাই জলজ ( সাধারন প্রকার টাইপ ব্যবহৃত), স্থল টরটয়েস যাদের গাড় বোল্ড টাইপ ব্যবহার করা হয়েছে এবং আপনি দেখতে পারবেন, আধুনিক স্থল টরটয়েসরা একটি একক শ্রেনীর প্রতিনিধিত্ব করছে, Testudinidae, যারা অন্যথায় জলজ chelonians এর সমৃদ্ধ নানা শাখার মধ্যে তাদের শাখাটির অবস্থান। তাদের সব নিকটাত্মীয়রা জলজ টার্টল। আধুনিক স্থলবাসী টরটয়েসরা অন্যথায় জলজ টার্টলদের বিবর্তনীয় ঝোপে একটি ছোট ডাল মাত্র। তাদের জলজ পুর্বসুরীরা রুপান্তরিত হয়েছে টার্টল এ এবং প্রত্যাবর্তন করেছিল স্থলে। এই তথ্যটি Odontochelys মত কোন প্রাণীর শরীরে খোলসটি পানিতে বিবর্তিত হয়েছিল এই সত্যটির সাথে সামন্জষ্যপুর্ণ।কিন্তু আমাদের আরো একটি সমস্যা আছে, আমি যদি পারিবারিক বৃক্ষটির দিকে তাকান, আপনি লক্ষ্য করবেন যে, Testudinidae ( সব আধুনিক ল্যান্ড টরটয়েস যার অন্তর্ভুক্ত), সেখানে আরো দুটি জীবাশ্ম গণ আছে,যারা পুরোপুরি খোলসযুক্ত Proganochelys এবং Palaeochersis; এদেরকে দেখানো হয়েছে স্থলবাসী হিসাবে, এর কারনটা আমরা পরবর্তী অনুচ্ছেদে আলোচনা করছি।

তাদের অবস্থান ঠিক সেই শাখাগুলোর কাছে, যারা জলজ টার্টলদের প্রতিনিধিত্ব করছে। মনে হতে পারে এই দুই গণর সদস্যরা প্রাচীনভাবে স্থলবাসী।

Odontochelys আবিষ্কারের আগে, এই দুটি জীবাশ্ম ছিল সবচেয়ে প্রাচীন chelonians যাদের কথা আমরা জানতাম। এবং Odontochely এর মতই তাদের বসবাস ট্রায়াসিক পর্বের শেষাংশে, কিন্তু Odontochelys   এর চেয়ে প্রায় ১৫ মিলিয়ন বছর পরে। কিছু বিশেষজ্ঞ তাদের ব্যাখ্যা করেছেন মিঠা পানিতে বাস করা টার্টল হিসাবে। কিন্তু বর্তমানে পাওয়া সব প্রমানই বলছে তারা স্থলবাসী ছিল, গাড় দাগ দিয়ে যাদের চিহ্নিত করা হয়েছে এই ডায়াগ্রামে।

আপনি ভাবতে পারেন কিভাবে আমরা কোন একটি জীবাশ্ম প্রাণী, বিশেষ করে যাদের সামান্য কয়েক টুকরা খুজে পাওয়া গেছে, তারা পানি না স্থলে বাস করতো। কখনো কখনো ব্যাপারটা খুব স্পষ্ট। Ichthyosaurs রা হচ্ছে ডায়নোসরদের সমসাময়িক একধরনের সরীসৃপ, যাদের ফিন এবং সাতারের জন্য সরল সহজ একটি শরীর ছিল। জীবাশ্ম দেখলে আমরা দেখবো তারা ডলফিনদের মত এবং তারা নিশ্চিৎভাবে ডলফিনদের মতই জীবন ধারন করতো পানিতে। টার্টল আর টরটয়েস দের ক্ষেত্রে বিষয়টি এতটা স্পষ্ট না। যেমনটা আপনি আশা করতে পারেন, এর সবচেয়ে বড় যে সুত্র আমাদের তার জীবন আচরণ সম্বন্ধে ধারনা করতে সাহায্য করে, সেটি হচ্ছে এর পা। প্যাডল সদৃশ্য পা আসলেই হাটার উপযোগী পা থেকে অনেক আলাদা। ওয়াণ্টার জয়েস ও জ্যাক গথিয়ের, ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক, এই সাধারণ জ্ঞানটি দিয়ে শুরু করে এর স্বপক্ষে আরো কিছু প্রমান জড়ো করেছিলেন। একাত্তরটি জীবিত chelonians দের বাহু এবং হাতের হাড়ের তিনটি গুরুত্বপুর্ণ পরিমাপ নিয়ে তারা একটি প্রস্তাব করেছেন। আমি বহুকষ্টে সেই অসাধারন গণনার বিস্তারিত বিবরণ দেয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখছি তবে তাদের উপসংহার খুবই সুস্পষ্ট। এই প্রাণীগুলোর হাটবার উপযোগী পা ছিল, সাতার উপযোগী প্যাডল (paddles) না। বৃটিশদের ইংরেজীতে, তারা টরটয়েস, টার্টল নয়। তারা স্থলে বাস করতো। যদিও তারা আধুনিক ল্যান্ড টরটয়েস দের দুরবর্তী আত্মীয়।

এখন আমাদের হাতে একটি সমস্যা।যদি, যেমনটা Odontochelys কে বর্ণিত করা পেপারের লেখকরা বিশ্বাস করেন যে, তাদের অর্ধেক খোলস যুক্ত জীবাশ্ম প্রদর্শন করছে, খোলসটি বিবর্তিত হয়েছে পানিতে। তাহলে কিভাবে আমরা ব্যাখ্যা করবো স্থলে বাস করা দুটি পুরো খোলস যুক্ত টরটয়েসদের, আরো ১৫ মিলিয়ন বছর পর? Odontochelys, আবিষ্কারের আগে, আমি কোন ইতস্ততা ছাড়াই বলতে পারতাম Proganochelys আর Palaeochersis দুটোই স্থলবাসী আদিপুরুষের রুপ পানিতে ফিরে যাবার আগে। খোল বিবর্তিত হয়েছে স্থলে, কিছু খোলস সহ টরটয়েস আবার সমুদ্রে ফিরে গেছে, যেমন সিল, তিমি এবং ডুগং পরে ফিরে গিয়েছিল। বাকীরা স্থলে ছিল, তবে তারা বিলুপ্ত হয়েছে। এবং এরপর কিছু সী টার্টল আবার স্থলে ফেরত আসে, যারা আজকের সব ল্যান্ড টরটয়েসদের পুর্বসুরী।এটা আমি বলতাম, আসলে এই অধ্যায়ের পুর্ববর্তী একটি ড্রাফটে আমি সেটাই বলেছিলাম, Odontochelys দের আবিষ্কার ঘটনা প্রকাশ হবার আগে। কিন্তু Odontochelys  সেই ধারনাটিকে আবার বেশ কিছু ধারনার মিশ্রপাত্রে ছুড়ে দেয়। এখন আমাদের হাতে আছে তিনটি সম্ভাবনা..যার প্রতিটি কৌতুহদ্দেীপক সমানভাবে ..

Proganochelys ও Palaeochersis হয়তো স্থলবাসী প্রানীর টিকে থাকা সদস্য, যারা তাদের কিছু প্রতিনিধিকে সাগরে পাঠিয়েছিল, এর মধ্যে তাদের পুর্বসুরী Odontochelys অন্তর্ভুক্ত। এই হাইপোথিসিসটি প্রস্তাব করছে খোলস আবিষ্কার হয়েছে স্থলে আগে, এবং Odontochelys রা তাদের কারাপেসটি হারিয়েছে সাগরবাসী হবার পর, শুধু তলদেশে খোলসটি টিকে গেছে।

২ খোলসটি হয়তো বিবির্তিত হয়েছিল পানিতে, যেমনটি চীনা গবেষকরা দাবী করছেন, প্রথমে পেটের উপর খোলস বা plastron বিবর্তিত হয়েছে প্রথমে এবং পিঠের কারাপেসটি বিবর্তিত হয়েছে পরে। এই ক্ষেত্রে Proganochelys Palaeochersis নিয়ে আমরা কি করতে পারি, যারা কিনা স্থলে বাস করতো অর্ধেকটা খোলস সহ Odontochelys যখন বাস করতো তার পরে? Proganochelys Palaeochersis সম্ভবত তাদের খোলস বিবর্তন করেছে স্বতন্ত্রভাবে। কিন্তু আরো একটি সম্ভাবনা আছে।

৩ Proganochelys ও Palaeochersis হয়তো এর আগের পানি থেকে স্থলে প্রত্যাবর্তনকে প্রতিনিধিত্ব করছে। এটা কি একটি বিস্ময়কর আর চমকপ্রদ একটা ধারনা নয়?

আমরা ইতিমধ্যে বেশ আত্মবিশ্বাসী সেই উল্লেখযোগ্য সত্যটি নিয়ে, যে টার্টলরা স্থলে ফিরে এসে একটি বিবর্তনীয় প্রতিবর্তনের একটি অনন্য উদহারণ সৃষ্টি করেছে: খুব আদি একটি চিহ্ন যা ইঙ্গিত করছে ল্যান্ড টরটয়েসরা তাদের আরো আগের মাছ পুর্বসুরীদের জলজ পরিবেশে এবং সেখানে তারা বিবর্তিত হয়েছে সী টার্টল হিসাবে। এবং তারপর তারা আবারও স্থলে ফিরে আসে ল্যান্ড টরটয়েস দের নবজন্ম রুপ হিসাবে,Testudinidae;   এটা আমরা জানি বা প্রায় নিশ্চিৎ বিষয়টি নিয়ে আমরা। কিন্তু আমরা এখন আরো একটি প্রস্তাবের মুখোমুখি সেটি হচ্ছে এই পেছনে ফিরে আসার ব্যাপারটি ঘটেছে দুইবার! যা শুধু আধুনিক টরটয়েসদেরই জন্ম দেয়নি, বরং আরো অনেকদিন আগে, ট্রায়াসিক পরে যা জন্ম দিয়েছিল Proganochelys ও Palaeochersis দেরও।

অন্য একটি বই আমি DNA কে বর্ণনা করেছিলাম, the Genetic Book of the Dead হিসাবে। কারণ যেভাবে প্রাকৃতিক নির্বাচন কাজ করে, সেখানে একটি ধারনা আমরা নিতে পারি যে, কোন প্রানীর ডিএনএ, এর পুর্বসুরীরা যে পৃথিবীতে বসবাস করতো এবং প্রাকৃতিক নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছিল এটি তার একটি বিবরণ, কোন একটি মাছের জন্য the genetic book of the dead সেই আদিম সমুদ্রের বর্ণনা দেয়। আমাদের ও বেশীর ভাগ স্তন্যপায়ীদের জন্য, বইএর শুরু অধ্যায়গুলোর প্রেক্ষাপট সমুদ্র আর পরবর্তীতে সেই প্রেক্ষাপট হয় স্থল। তিমি, ডুগং, মেরিন ইগুয়ানা, পেঙ্গুইন, সীল, সীলায়ন, টার্টলদের জন্য তৃতীয় আরো একটি খন্ড আছে, যেখানে বর্ণিত আছে তাদের সেই ঐতিহাসিক ক্ষেত্রে, সমুদ্রে ফিরে যাবার কাহিনী, যা নিকটবর্তী কোন অতীতে তাদের পুর্বসুরীদের প্রমানিত ক্ষেত্র ছিল। কিন্তু স্থলবাসী টরটয়েসদের জন্য, হয়কো দুবার স্বতন্ত্রভাবে এবং সময়ের বেশ ব্যাবধানে, আরো একটি খন্ড, চতুর্থ খন্ড সংযোজিত হয়েছে, যা তাদের সর্বশেষ ক্ষেত্র পরিবর্তনের কথা ইঙ্গিত করছে – সর্বশেষ , সত্যিই কি তাই?

পুণরায় আবির্ভাব, আবারো স্থলে, আর কি কোন প্রানী আছে যার the Genetic Book of the Dead কি এমন একাধিক বিবর্তনীয় প্রতিবর্তন বা ইউ টার্ণ এর পালিম্পসেস্ট? যাবার আগে আমি, আমি ভাবতে বাধ্য হচ্ছি সেই সব মিঠা আর সমুদ্রের পানির চেয়ে খানিকটা কম লবনাক্ত বা ব্রাকিশ পানির প্রানী ( Terrapins) দের সম্পর্কে।যারা ল্যান্ড টরটয়েসদের নিকটাত্মীয়।তাদের পুর্বসুরীরা কি সরাসরি সমুদ্র থেকে ইষৎ লোনা এবং তারপর মিঠা পানিতে এসেছিল? তারা কি সমুদ্র থেকে স্থলে আসার মধ্যবর্তী কোন অবস্থাকে প্রতিনিধিত্ব করছে? কিংবা এটা কি সম্ভব যে তারা আরো একটি পানি থেকে প্রত্যাবর্তন এর প্রতিনিধিত্ব করছে আরো একটি পুর্বসুরীর যারা এখন আধুনিক ল্যান্ড টরটয়েস? Chelonians রা কি পানি এবং স্থলের মধ্যে বিবর্তনীয় সময়ে বার বার আসা যাওয়া করেছিল? তাহলে সেই পালিম্পসেষ্ট কি আরো বহুবার পুণলিখিত হয়েছে, আমি আপাতত যে কয়বার প্রস্তাব করলাম?

পোষ্ট স্ক্রিপ্ট ______________________

Darwinius_masillae_PMO_214.214
ছবি: Darwinius masillae , যার নাম দেয়া হয়েছে Ida, এ যাবত পাওয়া সব প্রাচীন পুর্ণাঙ্গতম প্রাইমেট জীবাশ্ম ( প্রায় ৪৭ মিলিয়ন বছর প্রাচীন)

২০০৯ সালে ১৯ মে, আমি যখন এই বইটির প্রুফ দেখছি, লেমুর সদৃশ্য এবং বানর সদৃশ্য প্রাইমেটদের মধ্যে একটি মিসিং লিঙ্ক আবিষ্কারের ঘোষনা আসে অনলাইন বৈজ্ঞানিক জার্ণাল এ। নামের এই প্রাণীটি বাস করতো ৪৭ মিলিয়ন বছর পুর্বের ক্রান্তীয় বনাঞ্চলে, যা বর্তমানে জার্মানী। এর লেখকরা দাবী করেছেন, এ পর্যন্ত পাওয়া এটি সবচেয়ে পুর্ণাঙ্গ প্রাইমেট জীবাশ্মর নমুনা: শুধু অস্থি না, বরং চামড়া, চল, কিছু আভ্যন্তরীণ অঙ্গ এমনকি তার শেষ খাওয়া খাদ্যর নমুনা সহ। Darwinius masillae এর মত বিস্ময়কর কোন সুন্দর জীবাশ্ম, কোন সন্দেহ নেই কিছু বাড়তি চঞ্চলতাও সৃষ্টি করে, যা স্পষ্টভাবে বিষয়টি দেখার ক্ষমতা নষ্ট করে দিতে পারে। Sky News এর মতে, এটি পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্য যা অবশেষে প্রমান করেছে চার্লস ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্বটিকে। বিস্ময়কর ……. মিসিং লিঙ্ককে ঘিরে অর্থহীন রহস্যময়তা আপাতদৃষ্টিতে তার কোন ক্ষমতাই হারায়নি।

 __________________________সমাপ্ত

Advertisements
রিচার্ড ডকিন্স এর দি গ্রেটেষ্ট শো অন আর্থ : ষষ্ঠ অধ্যায় (শেষ পর্ব)

One thought on “রিচার্ড ডকিন্স এর দি গ্রেটেষ্ট শো অন আর্থ : ষষ্ঠ অধ্যায় (শেষ পর্ব)

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s